আস্তে টেপেন ব্যাথা লাগছে

মালিক স্টোররুমের দরজা লাগিয়ে আমার উপর ঝাঁপিয়ে পড়ল। দুই হাত দিয়ে আমার দুই দুধ টিপতে লাগল। আমি বললাম আস্তে টেপেন ব্যাথা লাগছে।মনে মনে ভাবলাম তাড়াতাড়ি চুদাচুদি শেষ করতে হবে। আমি উনার প্যান্ট খুলে বাড়া মুখে নিয়ে চুষে দিলাম। তারপর আমার সালোয়ার খুলে মেঝেতে শুয়ে পরলাম। দুই পা ফাক করে ভোদা কেলিয়ে ধরলাম। ওনার বাড়া আমার ভোদার মধ্যে পকাত করে ঢুকিয়ে চুদতে লাগল।

নরোম মাংসের সমুদ্র

আমার নাম সোনালি। বাড়ি বারাসাত। আমার বয়স ২৬. ২ বছর হল বিয়ে হয়েছে দেখা শোনা করে। আমার বরের নাম সিদ্ধার্থ। ও একটা বিমা কোম্পানির এজেন্ট । কিন্তু গত মাসে সেটা বন্ধ হএ গেছে। তাই হটাত করে আমাদের সংসারে খারাপ সময় নেমে এসেছে। সিদ্ধার্থ ও খুব বিপদে পরেছে। বাড়িতে বুড় বাবা মা আর সুন্দরি বৌ। হ্যাঁ, আমি বেশ সেক্সি ও সুন্দরি। ৩৪ সাইজ এর নিটোল স্তন, দুধের মত ফরসা গায়ের রং আর খুব সুন্দর মুখশ্রী দেখে আমার শ্বশুর মশাই আমাকে পছন্দ করে এনেছিলেন।

সংসারের জন্য বেশ্যা

সাত সকালে এমন চেঁচামেচি ডাক কি আর ভালো লাগে? আমার ঘুমটা খুব সহজে ভাঙতে চায়না। তারপরও, মিমির চেঁচামেচি ডাক শুনি, এই ভাইয়া, উঠবি না? তাহলে দেখাচ্ছি মজা। আমি হঠাৎই দু চোখের উপর কিছু তরলের অস্তিত্ব অনুভব করি। চোখ দুটি আর বন্ধ করে রাখতে পারি না। খুলার চেষ্টা করি। অথচ, চোখের পাতা দুটি কেমন যেনো ঈষৎ আঠালো ফেনায় জড়িয়ে থাকে। আমি দু হাতের পিঠ দিয়ে চোখ দুটি মুছার চেষ্টা করি। কেমন ফেণা ফেণা তরলের মতোই লাগে।

যোনীটাতে একটা চুমু

মাসুম একা একা বারান্দায় পায়চারী করছে। হালকা বাতাস বইছে। বারান্দা থেকেপাসের বাসার রান্নাঘর দেখা যায়। ওরা পাশাপাশি থাকলেও আলাপ হয়নি কখনো। আলাপ হবেই বা কি করে বৌদি কখনো এদিক ওদিক তাকায়না কাজ করে যায় আপন মনে। পাশেরবাসার বৌদির রান্নার দৃশ্য দেখা যায় এখান থেকে স্পষ্ট। কখনোবা ছাদে গেলে দেখা যায় কাপড় রোদে দিতে গেলে। বেশিরভাগ সময় মেক্সি পরে থাকে, ওড়না ছাড়া।

সতিচ্ছদ ফাটার রক্ত

আমাদের ভাড়াটে করিম সাহেবের মেয়ের বিয়ে। নিচতলার পুরোটা জুড়ে তাই সাজ সাজ রব। অতিথি আর হাক ডাক। বিরক্তির একশেষ। আমি সবে অনার্সে ভর্তি হয়েছি তখন। পড়াশুনা তেমন একটা নাই। সারাদিন ক্যাম্পাসে আড্ডা দিয়ে, সন্ধেটা আজিজ মার্কেটে চাপা দিয়ে রাতে বাড়ি ফিরি। বাসায় কেবল মা থাকেন। বাবা বহুদিন ধরে ইউএস প্রবাসী। সুতরাং খবরদারির কেউ নেই।

ধোনটাকে ঢুকিয়ে দিয়ে বললাম মাগী চোষ

আমার নাম সুমন । আমি গ্রামের ছেলে । আগে গ্রামের স্কুলে ক্রীড়া শিক্ষক হিসেবে কাজ করতাম । এখন শহরের নাম করা ইংলিশ মাদ্ধম গার্লস স্কুলে ক্রীড়া শিক্ষক হিসেবে কাজ করি । এখানে সব ধনির দুলালীরা পরতে আসে । এখানকার মেয়েদের খেলাধুলার পারফর্মেন্সে সন্তুষ্ট ছিলাম না মোটেও । সব মেয়েগুলো একদম ফার্মের মুরগি । বয়সের তুলনায় এরা শুধু গায়েপায়েই বেরে ওঠে ।

ফর্সা লাল টুকটুকে গুদে

ববি ম্যাম গাড়ি নিয়ে বেরিয়ে গেছে সেই সকাল ১১ টায় ৷ ৪ টে বাজতে চলল , এদিকে নির্জরের বুকের ভিতরে ধুক পুক করছে কেজানে ম্যাম মামা কে কি অভিযোগ করে পুলিশ ডাকবে না তো ? আগেই বাক্স প্যাটরা গুছিয়ে নিয়েছে জানে ম্যাম ফিরে এলে মামা কে ডাকবে তার পর গালি গালাজ করে তাড়িয়ে দেবে তাকে কাজ থেকে কেন যে তার মাথা খারাপ হলো ওরকম ৷ আগে এরকম হয় নি কখনো ৷